আল মামুন

Category: জীবনী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

আল মামুন   ভূমিকা বাঙালি জাতির হাজার বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে গৌরবময় অধ্যায় হচ্ছে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ। আর এই অধ্যায়ের মহানায়ক হলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীন বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধু সমার্থক; এক সুতোয় গাঁথা। বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ, সাহসী ও দূরদর্শী নেতৃত্বে আমাদের ধারাবাহিক স্বাধীনতা সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধে চূড়ান্ত রূপ নিয়েছিল। একটি নিরস্ত্র বাঙালি […]

প্রথম যেদিন পৃথিবীর আলোয়

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ। ১৩২৭ সালের ২০ চৈত্র। মঙ্গলবার রাত আটটা। বৃহত্তর ফরিদপুরের গোপালগঞ্জ জেলার বাংলাদেশের আর দশটি সাধারণ গ্রামের মতো গাছপালা, জঙ্গলঘেরা, নদীমাতৃক, গ্রামবাংলার এক নিভৃত কোণে টুঙ্গিপাড়া গ্রাম। এই গ্রামেরই এক সাধারণ মধ্যবিত্ত পরিবার— শেখ লুৎফর রহমান এবং সায়েরা খাতুনের ঘরে আসে নতুন এক অতিথি। কোল আলো করে আসা সেই শিশুটির নাম রাখা […]

ছোট্ট খোকার বেড়ে ওঠা

মা-বাবা ‘খোকা’ নামে ডাকলেও বন্ধুরা তাঁকে ডাকত ‘মুজিব’ বলে, কেউ কেউ বলত ‘মুজিব ভাই’। ছোট্ট খোকা তথা শেখ মুজিব ছোটবেলায় খুব চঞ্চল এবং দুষ্টু ছিলেন। তার দুরন্তপনা পছন্দ করতো সমবয়সী ছেলেমেয়েরা। সে সবার সঙ্গে সহজেই মিশে যেতে পারতো। তাই তাঁকে ছাড়া তাদের খেলা যেনো জমতো না। শৈশবে শেখ মুজিব ছিলেন হালকা-পাতলা, ছিপছিপে গড়নের সুদর্শন এক […]

রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়া

কিশোর বয়স থেকেই শেখ মুজিবের ভেতর দেখা গিয়েছিল অস্বাভাবিক নেতৃত্বগুণ। খুব সহজেই মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারতেন তিনি। মানুষের প্রতি কোনো অন্যায়-অবিচারই সহ্য করতে পারতেন না শেখ মুজিব। প্রবল সাহস ছিল তাঁর। তিনি অন্যায়কারীর চোখে চোখ রেখে কথা বলতেন, করতেন প্রতিবাদ। ছোট্ট খোকা প্রতিবাদের সেই ভাষা আত্মস্থ করেছিলেন সেই ছোটবেলায়ই। রাজনীতিতে শেখ মুজিবের প্রথম পাঠ […]

ভাষা আন্দোলনে শেখ মুজিব

১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্র সৃষ্টির পর পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী প্রথমেই আঘাত হানে বাংলা ভাষার ওপর। ক্ষমতা দখল করেই বাংলা ভাষা ও বাঙালিকে দমিয়ে রাখার পরিকল্পনা করে পাকিস্তানিরা। তারা চেয়েছিল সংখ্যালঘু জনগণের ভাষা উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে চাপিয়ে দিতে। কিন্তু তাদের সেই অপতৎপরতা রুখে দাঁড়িয়েছিলেন শেখ মুজিব। পাকিস্তানের মুসলিম লীগ সরকারের বাঙালি বিদ্বেষী আচরণ প্রথম প্রকাশ পায় বাংলা […]

ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা

অবিভক্ত পাকিস্তান রাষ্ট্রে প্রথম সরকারবিরোধী সংগঠন ছাত্রলীগ। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার মাত্র চার মাস ১৯ দিন পর অর্থাৎ ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলের অ্যাসেম্বলি কক্ষে এই সংগঠনটি প্রতিষ্ঠিত হয়। সে সময়ে বঙ্গবন্ধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র। ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠার মূল উদ্যোক্তা ছিলেন তিনিই। প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে ছাত্রলীগের নাম ছিল ‘পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ।’ প্রতিষ্ঠার […]

যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন

১৯৫১ সাল থেকেই প্রাপ্তবয়স্কদের ভোটাধিকারের ভিত্তিতে নির্বাচনের দাবিতে সোচ্চার হয়ে ওঠে বিরোধীদলগুলো। কিন্তু নানা টালবাহানায় নির্বাচন পিছিয়ে দিতে থাকে মুসলিম লীগ সরকার। এরপর ১৯৫২ সালে পূর্ব পাকিস্তান আইন পরিষদের পাঁচ বছরের মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। নির্বাচন আসন্ন দেখে সব দল প্রস্তুতি নিতে থাকে। ১৯৫২ সালের ২৭ জুলাই শেরে বাংলা একে ফজলুল হক ‘কৃষক-শ্রমিক পার্টি গঠন […]

ছয় দফা আন্দোলন

১৯৪৭ সালে পাকিস্তান রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পর থেকেই পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালি অধিবাসীরা বিভিন্নভাবে উপেক্ষিত ও অবহেলিত হতে থাকে। আইয়ুব খান, মোনয়েম খান, সবুর খানরা পাকিস্তানকে উপনিবেশ হিসেবে ধরে রেখে শোষণের যন্ত্রে পরিণত করেন। তারা কথা বলেন অস্ত্রের ভাষায়। কিন্তু জীবনবাজি রেখে পথ চলতে দ্বিধা করেন না শেখ মুজিব। পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার এবং যুক্তফ্রন্টের মধ্যে আপোস রফা […]

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা

বাঙালি যখনই তার অধিকার চেয়েছে, যখনই মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে চেয়েছে, তখনই বাঙালির ওপর স্টিমরোলার চালিয়েছে পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী; বাঙালির ওপর চালিয়েছে দমন নীতি। নানাভাবে শোষণ করা হয়েছে বাংলাকে। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর এই অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে বাঙালিকে জাগিয়ে তুলেছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান। ছয় দফা দাবি উত্থাপনের মাধ্যমে বাংলার কণ্ঠস্বর হয়ে ওঠা শেখ মুজিবকে বারবার কারাগারে পাঠিয়েও দমাতে পারেনি […]

শেখ মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু

আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় শেখ মুজিবুর রহমান তখন কারাগারে। তাঁর মুক্তিতে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে বাংলার মানুষ। সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ এবং মওলানা ভাসানী এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে এবং মামলা প্রত্যাহার ও শেখ মুজিবসহ সকল বন্দীদের মুক্তির দাবিতে গণআন্দোলন গড়ে তোলেন। উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে ছাত্র-জনতার আন্দোলনের কাছে নতিস্বীকার করতে বাধ্য হয় পাকিস্তানি সরকার। গণআন্দোলনের মুখে শেষ পর্যন্ত আইয়ুব সরকার ১৯৬৯ […]

ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান

শেখ মুজিবুর রহমান তখন পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী। তাঁকে ফাঁসি দেওয়ার নিয়েছিল স্বৈরশাসক আইয়ুব খান। সে কারণে ১৯৬৮ সালের ১৭ জানুয়ারি মুক্তি দিয়ে কারাগারের গেটে আনার পর আবার গ্রেফতার করে ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র’ মামলার আসামি হিসেবে ক্যান্টনমেন্টে বন্দী করা হয়। বাঙালি জাতির কণ্ঠ স্তব্ধ করাই এই মামলার উদ্দেশ্য ছিল। আইয়ুব-মোনায়েম খানের স্বেচ্ছাচারী শাসনের বিরুদ্ধে তখন পাকিস্তানের উভয় […]

বিপুল বিজয়ের এক নির্বাচন

অনেক টালবাহানার পর আইয়ুব খান ক্ষমতা ছাড়তে রাজি হন। ১৯৬৯ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি আইয়ুব খান রাওয়ালপিন্ডিতে পাকিস্তানের বিরোধীদলীয় নেতৃবৃন্দের গোলটেবিল বৈঠক হয়। বৈঠকে উদ্ভূত রাজনৈতিক সমস্যা সমাধানে ব্যর্থ হয়ে ২৫ মার্চ সেনাবাহিনী প্রধান আগা মোহাম্মদ ইয়াহিয়া খানের হাতে ক্ষমতা তুলে দিয়ে পদত্যাগ করেন। ক্ষমতা গ্রহণের পর ২৮ নভেম্বর প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইয়াহিয়া খান ৯০ দিনের […]

নির্বাচনের পরে নতুন ষড়যন্ত্র

নির্বাচনে বিপুল বিজয়ের পর আওয়ামী লীগ নেতা শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের একক প্রতিনিধি হিসেবে আবির্ভূত হন। তিনিই হন পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠ দলের নেতা। নির্বাচনে বিপুল জনসমর্থন এবং নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন লাভ করায় গণতন্ত্রের নিয়মানুযায়ী পাকিস্তানের শাসনভার আওয়ামী লীগ অর্থাৎ শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে ন্যস্ত হওয়ার কথা। কিন্তু পাকিস্তানি সামরিকগোষ্ঠী ও জুলফিকার আলী […]

অসহযোগ আন্দোলন

পশ্চিম পাকিস্তানের সামরিক সরকারের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ এবং সাধারণ জনগণকর্তৃক পরিচালিত হয় অসহযোগ আন্দোলন। ১৯৭১ সালের ২ মার্চে শুরু হয়ে ২৫ মার্চ পর্যন্ত চলে এ আন্দোলন। আন্দোলনের মূল উদ্দেশ্য ছিল পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার থেকে পূর্ব পাকিস্তানের স্বায়ত্তশাসন নিশ্চিত করা; এ আন্দোলনে কেন্দ্রীয় শাসনের বিপরীতে স্বশাসন প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়। সত্তরের নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়া আওয়ামী […]

অমর কবিতা পাঠ

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ। পড়ন্ত দুপুর। রেসকোর্স ময়দান। ফাল্গুনের রোদ ঝলমলে সুন্দর একটা দিন। এমন দিন সহজে আসে না। এদিন বাংলাদেশের আকাশ-বাতাস ভারী হয়ে ওঠে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানের দৃপ্ত উচ্চারণে। জনসমুদ্রে ঢেউ খেলে যায় পুরো রেসকোর্স ময়দানে। ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে জড়ো হতে থাকে লাখো মানুষ। সবার হাতে বাঁশের লাঠি ও নতুন দেশের পতাকা। […]