আল মামুন

কমিউনিটি রেডিও : ‘আগে সিগারেট খাইতাম, এখন খাইনা’

কমিউনিটি রেডিও : ‘আগে সিগারেট খাইতাম, এখন খাইনা’

আল মামুন

ধূমপায়ীদের সংখ্যা দিন দিন যেনো প্রতিযোগিতার ভিত্তিতেই বেড়ে চলছে। বিশেষ করে তরুণদের মধ্যে এই প্রবণতাটা খুব বেশি লক্ষ করা যায়। তারা মনে করে ধূমপান করা একটি ফ্যাশন বা স্মার্টনেস প্রকাশের মাধ্যম। এমনটি ভেবেই বন্ধুদের সাথে তাল মেলাতে ধূমপান শুরু করেছিলো বরগুনার পরীরখাল ডিএম কলেজের উচ্চমাধ্যমিক প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী মো. বেলাল হোসাইন।

ক্রোক স্লুইজঘাট এলাকায় রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিচ্ছিলেন বেলাল। এসময় তার সঙ্গে কথা হয়। বেলাল বলেন, আমরা বন্ধুরা মিলে শখ করে একদিন সিগারেট খাই। এভাবে একদিন দুইদিন করতে অনেকটা অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেলো। বাসার কেউ বা বড়রা কেউ জান তো না। লুকিয়ে লুকিয়ে খেতাম। একদিন লোকবেতারের একটা অনুষ্ঠান শুনে বন্ধুরা মিলেই সিদ্ধান্ত নিই আর কোনো দিন সিগারেট খাবো না।

তিনি বলেন, আমরা লোকবেতার শুনতাম। লোকবেতারের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্যে ‘নানি-নাতির কেরচা’ অনুষ্ঠানটা বেশি শুনতাম।এই অনুষ্ঠানে একদিন ধূমপানের ক্ষতিকর দিক নিয়ে নানি-নাতি নাটিকার মাধ্যমে আলোচনা করে। এটা শুনে সিদ্ধান্ত নিলাম সিগারেট ছেড়ে দিবো।

একই কলেজের শিক্ষার্থী নূর আলম বলেন, দেশকে ধূমপান মুক্ত করার জন্য দেশের তরুণ সমাজকেই আগে ধূমপান মুক্ত করতে হবে। অথচ এ তরুণ সমাজ আজ সিগারেটের ধোঁয়ার মধ্যেই সুখ খোঁজে। তাই আমরা ধূমপান বর্জন করে ধূমপানমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার নিয়েছি।

ধূমপান এক ধরনের নেশা। সাধারণভাবে ধূমপানকে সামাজিক অপরাধ হিসাবে দেখা হয় না। কিন্তু সকল মাদকা সক্তদের প্রাথমিক স্তর হচ্ছে ধূমপান। ধূমপানের মাধ্যেমেই মাদক জীবনের যাত্রা শুরু হয়। এরপর ধিরে ধিরে তা মাদকাসক্তের দিকে নিয়ে যায় যুব সমাজকে। ধূমপান থেকে মাদক, এক মাদক অন্য মাদক গ্রহণ, এভাবে মাদকের ভয়ংকর কবলে পড়ে জীবন ও যৌবন উভয়ই অকালেই বিসর্জন দিচ্ছে দেশের সম্ভবনাময় যুব সমাজ এবং ধ্বংস করছে দেশ ও জাতিকে।

পাবলিক প্লেসে ধুমপান বন্ধে সরকারি আইন থাকলেও তার তেমন কার্যকারিতা নাই। এ বিষয়ে বেলাল বলেন, আমাদের দেশে বড় সমস্য হলো আইন থাকা সত্ত্বেও আমরা আইন মানি না। আবার আইন অমান্যকারীর বিরুদ্ধে আমরা কোন ব্যবস্থাও নিই না। তাই আইনের যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছে কিনা সেটিও পর্যবেক্ষণের প্রয়োজন রয়েছে।

তিনি বলেন, আইনের পাশাপাশি গণমাধ্যম বিশেষ করে আমাদের স্থানীয়পর্যায়ের কমিউনিটি রেডিওগুলো অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। তারা বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তরুণ সমাজকে সচেতন করছে। ধূমপানবিরোধী আইন এবং এর ক্ষতিকর দিকগুলো নিয়ে তারা অনুষ্ঠান করছে। যার কারণে আমি বা আমরা ধূমপান ছাড়তে উদ্যোগী হয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *