আল মামুন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

আল মামুন

 

ভূমিকা

বাঙালি জাতির হাজার বছরের ইতিহাসের সবচেয়ে গৌরবময় অধ্যায় হচ্ছে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ। আর এই অধ্যায়ের মহানায়ক হলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীন বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধু সমার্থক; এক সুতোয় গাঁথা। বঙ্গবন্ধুর বলিষ্ঠ, সাহসী ও দূরদর্শী নেতৃত্বে আমাদের ধারাবাহিক স্বাধীনতা সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধে চূড়ান্ত রূপ নিয়েছিল। একটি নিরস্ত্র বাঙালি জাতি সশস্ত্র যুদ্ধে পরিণত হয়েছিল একজন নেতার বজ্রকণ্ঠ আহ্বানে। ইতিহাসে তাঁর জাতির জনক হয়ে ওঠার পেছনে রয়েছে সুদীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রাম।

মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য বঙ্গবন্ধু বারবার রক্তচক্ষুর শিকার হয়েছেন পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর। বাঙালি জাতীয়তাবাদের চেতনাকে সুসংগঠিত করে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে বারবার গ্রেপ্তার নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। তবুও তিনি কখনোই অন্যের কাছে মাথা নত করেননি।

বঙ্গবন্ধু ছিলেন বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকে তাঁর স্বপ্ন পুরোপুরি বাস্তবায়নের সুযোগ দেয়নি ষড়যন্ত্রকারীরা। ঘাতকরা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি মহানায়ককে সপরিবারে হত্যা করেছিল। তারা চেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন মুছে দিতে। কিন্তু তাদের সেই অশুভ তৎপরতা সফল হয়নি। বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে সমৃদ্ধির পথে।

বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর পুরো জীবনকে এই ছোট পরিসরে তুলে আনা কঠিন ও জটিল কাজ। বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্মের উল্লেখযোগ্য অংশ সহজ এবং সাবলীল ভাষায় বর্ণনা করা হয়েছে এই গ্রন্থে। শিশু-কিশোরদের উপযোগী করে লেখা হলেও বঙ্গবন্ধুকে জানতে ও বুঝতে উৎসাহী সব বয়সী পাঠকদের কাছেই এটি সুখপাঠ্য হবে বলে আশা রাখি। এই গ্রন্থে তথ্য প্রদানের জন্য একাধিক তথ্যসমৃদ্ধ গ্রন্থের সহায়তার পরিপ্রেক্ষিতে যাচাই করে নেওয়া হয়েছে। তবুও কিছু-না-কিছু ভুল ভ্রান্তি থেকে যাওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়। সুহৃদয় পাঠক সেসব ভুল ধরিয়ে দিলে কৃৃতজ্ঞ থাকব এবং তা পরবর্তী সংস্করণে তা শুধরে দিতে সচেষ্ট থাকব।

২.
বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার তেরো বছর পর এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘাতকদের হাতে নির্মমভাবে নিহত হওয়ার সাত বছর পর আমার জন্ম। মুক্তিযুদ্ধ কিংবা স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা— কাউকেই দেখিনি আমি। তবে স্কুল জীবন থেকেই এসব বিষয়ে একটু একটু করে জানতে শুরু করেছি; বুঝতে শিখেছি। যতো জেনেছি ততো কৌতূহল আরও বেড়েছে।

স্কুল-কলেজ জীবন শেষে উচ্চশিক্ষার জন্য পা রাখি ঢাকায়। ঢাকায় আসার পর অসংখ্যবার বঙ্গবন্ধুর বাড়ির সামনে গিয়েছি, বাড়িটি ঘুরে দেখার জন্য। কিন্তু ভেতরে ঢুকতে পারিনি, সাহস হয়নি। যতোবার তাঁর বাড়ির সামনে গিয়েছি, ততোবারই সামনে থেকে হাঁটাহাটি করে, ইতিউতি তাকিয়ে ফিরে এসেছি। না, আমি কারো বাধার সম্মুখীন হইনি। আমার কাছে মনে হয়েছে, আমি বঙ্গবন্ধুর রক্তাক্ত শরীরটা নিজের চোখে দেখবো কেমন করে! তাঁকে হত্যার নির্মমতা কীভাবে সহ্য করবো আমি?

শৈশবে বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যার কথা শুনেছি; শুনে শুনে বড় হয়েছি। শোনার পর থেকে মনে হয়েছে তাঁর রক্তাক্ত দেহ এখনো উপুড় হয়ে পড়ে রয়েছে ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বর বাড়িটির সিঁড়িতে। তাঁর শরীর থেকে এখনো গড়িয়ে গড়িয়ে পড়ছে তাজা রক্ত। আমি এমন একজন মহৎপ্রাণ মানুষকে এভাবে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখবো কীভাবে? না, আমি তা দেখতে চাইনি; দেখতে পারিও না। সব সময়ই আমার কাছে মনে হয়েছে এবং এখনও অবধি মনে হচ্ছে, বঙ্গবন্ধুর নিথর দেহ সিঁড়িতেই পড়ে আছে, কিন্তু কেউ এগিয়ে আসছে না তাঁকে তুলে অ্যাম্বুলেন্সে করে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়ার জন্য। মনে হয়েছে, সব মানুষ তাকিয়ে তাকিয়ে দেখছেটা কী!

একদিন বঙ্গবন্ধুর বাড়ির সামনে হাঁটাহাটি করতে করতে মনে হলো— আচ্ছা, আমিই যদি মরেই যাই, তাহলে তো শৈশব থেকে যাঁর সম্পর্কে শুনে এসেছি তিনি তো অদেখাই থেকে যাবেন! আমার মৃত্যুর আগে বঙ্গবন্ধুর রক্তাক্ত দেহটাই এক নজর দেখে মরি না কেনো; তাঁর দেহ থেকে গড়িয়ে গড়িয়ে যাওয়া তাজা রক্ত মাখি না কেনো আমার সারা শরীরে, যে রক্ত দিয়ে লেখা হয়েছে বাংলাদেশ, আর আমি লিখি আমার অনুভূতি! এই লেখা সেই দেখারই সরল প্রকাশ।

সূচিপত্র (পড়তে বিষয়ের ওপর ক্লিক করুন)

ভূমিকা
প্রথম যেদিন পৃথিবীর আলোয়
ছোট্ট খোকার বেড়ে ওঠা
রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়া
ভাষা আন্দোলনে শেখ মুজিব
ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা
যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন
ছয় দফা আন্দোলন
আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা
শেখ মুজিব থেকে বঙ্গবন্ধু
ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান
বিপুল বিজয়ের এক নির্বাচন
নির্বাচনের পরে নতুন ষড়যন্ত্র
অসহযোগ আন্দোলন
অমর কবিতা পাঠ
বাঙালি হত্যার নীল নকশা
বঙ্গবন্ধুকে যখন গ্রেফতার করা হলো
যেভাবে হলো স্বাধীনতার ঘোষণা
ফাঁসির অপেক্ষায় বঙ্গবন্ধু
মুজিবনগর সরকার
আপন আলোয় ফেরা
বাঙালির শোকের দিন
চার দেয়ালে বন্দি জীবন
হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি
অনন্য বঙ্গমাতা
বঙ্গবন্ধুর জীবনপঞ্জি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *