আল মামুন

আল মামুন

জীবন এক আশ্চর্য লাটিম, ঘুরছে, দেখছি।

শিক্ষাদীক্ষা

ড. এ পি জে আবদুল কালাম ছিলেন সাধারণ মানের ছাত্র। কিন্তু তিনি ছিলেন বুদ্ধিদীপ্ত ও কঠোর পরিশ্রমী। লেখাপড়ার প্রতি খুব আগ্রহী ছিলেন। তিনি ঘণ্টার পর ঘণ্টা পড়ালেখা করতেন। অঙ্ক কষতে খুব পছন্দ করতেন। এতে তার কোনো ক্লান্তি ছিল না। ড. কালামের স্কুল জীবন শুরু হয় রামনাথপুরমের শোয়ার্জ ম্যাট্রিকুলেশন স্কুল থেকে। এরপর ভর্তি হন তিরুচিরাপল্লীর সেন্ট […]

কর্মজীবন

মাদ্রাজ ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি থেকে ১৯৬০ সালে স্নাতক সম্পন্ন করার পর ভারতীয় প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংগঠন (ডিআরডিও) এর অ্যারোনটিক্যাল ডেভেলপমেন্ট এস্টাবিলিশমেন্টে একজন বিজ্ঞানী হিসেবে যোগদান করেন এ পি জে আবদুল কালাম। এই প্রতিষ্ঠানে তিনি একটি ছোট হোভারক্রাফট এর নকশা তৈরি করে তাঁর কর্মজীবন শুরু করেন। ড. কালাম ইনকসপার কমিটিতে ড. বিক্রম সারাভাই এর অধীনে […]

পুরস্কার ও সম্মাননা

রামেশ্বরমের দরিদ্র মুসলিম পরিবারে জন্ম নেওয়া শিশুটি দিনে দিনে বড় হয়ে ওঠে এক বিশাল কর্মযজ্ঞে নিজেকে সঁপে দেন। এই শিশুটি তাঁর মেধা, মনন, চিন্তাচেতনা, অধ্যাবসায়, উদ্দীপনা, অভিজ্ঞতা, সততা আর চরিত্রের দৃঢ়তার বলে সাফল্যের উচ্চশিখরে আরোহণ করতে সমর্থ হন। একটু একটু করে নিজেকে একটা মহীরূহে পরিণত করেন। তার স্বীকৃতিও তিনি পান জীবদ্দশায়। কাজের স্বীকৃতি স্বরূপ ড. […]

শৈশবেই অসাম্প্রদায়িকতার পাঠ

ড. এ পি জে আবদুল কালাম এক জীবন্ত ইতিহাস; অসাধারণ ব্যক্তিত্বের অধিকারী এক চমৎকার মানুষের প্রতিচ্ছবি। একজন মানুষ কীভাবে শূন্য থেকে মহাশূন্যে উঠতে পারে তার সবচেয়ে বড় দৃষ্টান্ত হলেন তিনি। জীবনে বারবার হেরে গিয়েও জিতেছেন, মনোবল হারাননি শিশুর মত কোমল হৃদয়ের অধিকারী অসাম্প্রদায়িক চেতনার এই মানুষটি। সব ধর্ম-বর্ণের মানুষ ছিলো তার কাছে সমান মর্যাদার। তাই […]

বোনের গহনা বন্ধক রেখে এমআইটিতে ভর্তি

সাফল্য অর্জনের ব্যাপারে সব সময়ই ছিলেন আত্মবিশ্বাসী ড. কালাম। এ জন্য তিনি উচ্চশিক্ষা নিতে চাইলেন। এবং এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে তিনি মোটেই দেরি করেননি। সে সময় পেশাগত শিক্ষা সম্পর্কে কোনো সচেতনতা ছিলো না। তখন উচ্চশিক্ষা বলতে সাধারণত কলেজে ভর্তি হওয়াকে বোঝাত। ড. কালামের বাড়ি থেকে সবচেয়ে কাছের কলেজটি ছিলো তিরুচরিতাপল্লীতে। একে সবাই উচ্চারণ করতো ত্রিচিনোপালি, […]

সৃষ্টিকর্তার প্রতি অগাধ বিশ্বাস

সৃষ্টিকর্তার প্রতি ড. কালামের ছিলো অগাধ বিশ্বাস। তিনি তাঁর জীবনের সফলতার জন্য সব সময়ই সৃষ্টিকর্তার কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তাঁর লেখা বইগুলোতে সে সবের প্রমাণ মেলে। তিনি তাঁর বাবার সাথে এলাকার মসজিদে নামাজ পড়তে যেতেন এবং রমজান মাসে রোজাও রাখতেন। ড. কালাম তাঁর ‘উইংগস অফ ফায়ার’ বইয়ে লেখেন— ‘আল্লাহ এই চমৎকার গ্রহের প্রতিটি বস্তুই একটি […]

মা-বাবা যার আদর্শ

ড. কালাম তারঁ মা-বাবার প্রতি সব সমময়ই শ্রদ্ধাশীল ছিলেন। জীবনের সব ক্ষেত্রে তাদেরকে আদর্শ মনে করতেন। তিনি তাঁর জীবনীগ্রন্থে বলেন— ‘আব্বার কাছ থেকে আমি পারিপার্শিক অস্থিরতার মধ্যে মনকে প্রশান্ত রাখার বিষয়টি শিখেছি। বহু দুঃখ ও ব্যর্থতার মুখোমুখি হয়েও নিজেকে পরাজিত হিসেবে বিবেচনা করিনি।’ বালক বয়সে বাবার কাছ থেকে সততার যে শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন তা তাঁর […]

বদলে গেলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নাম

তামিলনাড়ুর উপকূল এলাকার একটি গ্রামে জন্ম নেওয়া ভারতের সবচেয়ে জনপ্রিয় রাষ্ট্রপতি তথা অন্যতম সেরা বিজ্ঞানী ড. এ পি জে আবদুল কালাম। তখন কে জানতো দরিদ্র পরিবারের এই ছেলেই একদিন বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি হবেন, কেই বা জানতো এই ছেলে একদিন জ্ঞানে-বিজ্ঞানে ভারতকে নের্তৃত্ব দিবে! কিন্তু দরিদ্র মা-বাবার সেই ছেলেই দেখিয়েছিলেন যে একাগ্রতা আর […]

লেখক ড. কালাম

বিজ্ঞানী ড. কালাম লেখালেখিতেও ছিলেন সিদ্ধহস্ত। তিনি আত্মজীবনীসহ বেশ কিছু প্রণোদনামূলক ও প্রভাবশালী বই লিখেছেন। লিখেছেন কবিতা, গানও। যা তরুণদের কাছে পাথেয় হয়ে আছে। আত্মজীবনী ‘উইংস অফ ফায়ার’ তাঁর লেখা বইগুলোর মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয়তা লাভ করে। প্রকাশিত হবার পর বইটির ১০ লাখেরও বেশি কপি বিক্রি হয়েছে, অনুদিত হয়েছে বিভিন্ন ভাষায়। ‘ইনডিয়া ২০২০’ও বহুল পঠিত একটি […]

একজন স্বপ্নবাজ

ড. এ পি জে আবদুল কালাম বহুমাত্রিক প্রতিভার নানামুখী বিকাশের এক বিরল ব্যক্তি। তিনি স্বপ্নদ্রষ্টা, জীবনভর শুধু স্বপ্ন দেখেছেন। স্বপ্ন দেখাই ছিলো তার মহত্ব ও বিশালতা। তিনি তিনি নিজে স্বপ্ন দেখেছেন, স্বপ্ন দেখিয়েছেন গোটা জাতিকে। তরুণদের তিনি বলতেন— ‘যা তোমরা ঘুমের মধ্যে দেখ তা স্বপ্ন নয়। স্বপ্ন সেটাই, যা তোমাকে ঘুমাতে দেয় না।’ ড. কালামের […]

‘আই অ্যাম কালাম’

শুধু বিজ্ঞানী বা রাষ্ট্রপতি নয়— ড. এ পি জে আবদুল কালাম অমর হয়ে থাকবেন তাঁর অসাধারণ অনুপ্রেরণাদায়ী শক্তির জন্যও। তিনি তাঁর জীবনের প্রতিটি মুহূর্তে সংগ্রাম করে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেছেন। যা প্রজন্মের পর প্রজন্মের জীবনে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করবে। ড. কালামের জীবনের ছায়া অবলম্বনে ২০১১ সালে হিন্দিতে একটি সিনেমা নির্মিত হয়েছিলো ‘আই অ্যাম কালাম’ নামে। স্মাইল […]

বিজ্ঞানী ও জ্ঞানসাধক

ড. কালামের বাবা তাঁকে বানাতে চেয়েছিলেন কালেক্টর আর তিনি হয়ে গেলেন রকেট ইঞ্জিনিয়ার। অবশ্য রকেট ইঞ্জিনিয়ারও তাঁর হওয়ার ইচ্ছা ছিলো না, তিনি হতে চেয়েছিলেন বৈমানিক; যুদ্ধবিমানের পাইলট। ছোটবেলায় তাঁর শিক্ষক শিব সুব্রামনিয়াম আয়ার একবার শ্রেণিকক্ষের বোর্ডে একটি পাখি এঁকে পাখিটি দেখিয়ে বলেছিলেন— ‘পাখির মতো উড়তে পারবে?’ বিষয়টি তার ছোট মনে বেশ নাড়া দিয়েছিল। তখন তিনি […]

জাগতে বলতেন দেশের মানুষদের

নিজের দেশ, জন্মভূমি— একে সবাই ভালোবাসবেন, সব কিছু উজাড় করে দিবেন, এটাই তো স্বভাবিক। ড. কালামও দেশের জন্য নিবেদিত প্রাণ ছিলেন। সব সময় স্বপ্ন দেখতেন দেশকে এগিয়ে নেওয়ার। ভারতকে কীভাবে বিশ্বসভায় নিয়ে যাওয়া যায়— সেই চেষ্টাই তিনি করেছেন সারাজীবন। তিনি সব সময় দেশের জনগণকে জেগে উঠতে বলতেন। তিনি ভারতবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে ছিলেন তারা যেনো […]

যে চারটি বই বদলে দিয়েছিল ড. কালামের জীবন

বই মানুষের প্রকৃত বন্ধু। বই পড়লে সুন্দর সুন্দর স্বপ্ন দেখার পথ উন্মুক্ত হয়ে যায়। বুদ্ধির জাগরণ বই পড়া ছাড়া অসম্ভব। মানসিক ও আত্মিক জীবনের প্রচেষ্টা থেকে চরিত্রের যে সৌন্দর্য ফুটে ওঠে তা বই পড়ার মাধ্যমেই সম্ভব। বই দিয়ে জীবন বদলানোর অসংখ্য উদাহরণ আছে আমাদের আশপাশে। তেমনি ড. কালামের জীবন বদলের পেছনে চারটি বইয়ের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা […]

ড. কালামের জীবনের চারটি স্টেজ

একজন মানুষকে সারাজীবনে কয়েকটি স্টেজ বা পর্যায় অতিক্রম করতে হয়। আমেরিকান দার্শনিক ড. ওয়াইন ডবিøউ ডায়ার তাঁর ‘মেনিফিস্ট ইয়োর ডেস্টিনি’ বইতে মানবজীবনকে চারটি ভাগে ভাগ করেছেন। জীবনের এই চারটি স্টেজ হলো— ‘অ্যাথলেট স্টেজ’ বা ক্রীড়াণক পর্যায়। এই স্টেজে একটি জাতি সংগ্রাম ও সংঘাত থেকে মুক্ত থাকে। এই সময়টা জাতীয় কৃতিত্ব প্রদর্শন ও সাফল্য অর্জনের সময়। […]